Google Ads

রমজান মাসে যেভাবে কাঁটাবেন আপনার গুরুত্বপূর্ণ সময়

       


আসসালামু আলাইকুম,আল্লাহর রহমতে নিশ্চয়ই ভালো আছেন সবাই।আল্লাহতা'লা অনেক নিয়ামত হিসেবে আমাদের রমজান মাস দিয়েছেন। এই রমজান মাসকে কিভাবে আরোও সুন্দর করে আল্লাহয় ইবাদত করে কাঁটানো যায়,আজ সে বিষয়ে কথা বলবো।

তারাবির নামাজ পড়ে এসে রাতের খাবার পারলে অল্প কিছু খেয়ে নিবেন। রাতে যতো তাড়াতাড়ি সম্ভব ঘুমিয়ে পড়বেন। চেষ্টা করবেন সেহরির খাওয়ার কিছুটা সময় আগে উঠতে। রাত ২-২:৩০মিনিটের দিকে উঠে তাহাজ্জুদের নামাজ আদায় করবেন। যেহেতু এই সময়ে আল্লাহপাক প্রথমে আকাশে আসেন। এবং তওবা কারীর তওবা কবুল করেন।তাই এই সময় আল্লাহর কাছে কান্নাকাটি করে জিবনের সকল গুণা মাফ করার জন্য দোয়া করবেন। বান্দাহ কান্নাকাটি করে অতীতের ভুলের জন্য ক্ষমা চাইলে আল্লাহ পাক নিশ্চয়ই বান্দাদের ফিরিয়ে দেবেন না। তাই আমাদের এই মাসে বেশি বেশি করে তওবা করা উচিত।

*সেহরির সময় হয়ে গেলে সেহরি খেয়ে নিবেন। সেহরি খাওয়ার পর বিছানায় শুবেন না, এতে আপনার ঘুম চলে আসতে পারে।তাই সেহরি খেয়ে দাঁত ব্রাশ করবেন,অজু করে নামাজের প্রস্তুতি নিবেন। নামাজ পড়া যেনো বাদ না পরে। সকল ওয়াক্ত নামাজ পড়বেন। চেষ্টা করবেন পুরুষরা মসজিদে গিয়ে জামায়াতের সাথে সালাত আদায় করার জন্য।

*নামাজ পড়ে এসে সম্ভব হলে কিছুটা সময় কোরআন শরীফ তিলাওত করবেন। এই সময় কোরআন শরীফ তিলাওত করার উত্তম একটা সময়।

*পরে ঘুমিয়ে পরবেন, ঘুম থেকে উঠে গোসল করবেন। আল্লাহর নাম নিয়ে যিকির করবেন। আজান হলে যোহরের নামাজ পড়তে যাবেন।দিনের সকল সময় চেষ্টা করবেন আল্লাহর যিকির করে। ও তিলাওত করে কাটাতে।কারণ এই মাসে অন্য মাসের তুলনায় সওয়াব বেশি।

*ইফতার করার পূর্বে আল্লাহর কাছে দোয়া করবেন। এই সময় আল্লাহ দোয়া কবুল করেন। রমজানে অযথা সময় নষ্ট না করে যতো বেশি সম্ভব আল্লাহর ইবাদত করার চেষ্টা করবেন।পিছনের সব গুণা মাফ করার চেষ্টা করবেন এই একটা মাস

*পাঁচ ওয়াক্ত নামাজ জামাতে আদায় করার চেষ্টা করবেন।

ভুল হলে ক্ষমার দৃষ্টিতে দেখবেন। আজ এই পর্যন্তই। আল্লাহ হাফেজ

No comments

Powered by Blogger.